মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
পাতা

উপজেলা সেটেলমেন্টঅফিস

 পরিচিতি

 

এটি ভূমি জরিপ কার্যক্রমের মাঠ পর্যায়ের স্থায়ী অফিস। এখনও বাংলাদেশের প্রতিটি  উপজেলায় সহকারী সেটেলমেন্ট অফিসারের কার্যালয় নেই। বর্তমানে ১০টি বৃহত্তর জেলায় (যশোর, খুলনা, ফরিদপুর,বরিশাল, বগুড়া, রংপুর, সিলেট, টাংগাইল, কুমিল্লা ও নোয়াখালী) জোনাল সেটেলমেন্ট অফিসের অধীন ৩৭টি জেলায় ২৬০টি উপজেলার মধ্যে ২০৯টি উপজেলায় স্থায়ী সেট-আপ বা স্থায়ী কাঠামোভুক্ত এই অফিস রয়েছে। এই অফিস ভূমি মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন ও ভূমি রেকর্ড ও জরিপ অধিদপ্তরের অধীন জোনাল সেটেলমেন্ট অফিসের মাধ্যমে পরিচালিত হয়।

এছাড়া আরও ০৯টি বৃহত্তর জেলার (দিনাজপুর, রাজশাহী, কুস্টিয়া, পাবনা, ময়মনসিংহ, জামালপুর, ঢাকা,পটুয়াখালী ও চট্টগ্রাম) অধীন আরও ২০০টি উপজেলায় স্থায়ী সেট-আপ বা স্থায়ী কাঠামোভুক্ত এই অফিস স্থাপনের সকল আনুষ্ঠানিকতা (যাবতীয় সরকারী আদেশ-নির্দেশ) সম্পন্ন হয়েছে। অচিরেই বর্ণিত ২০০টি উপজেলায় অফিস স্থাপনসহ লোকবল নিয়োগ করা হবে।

দপ্তরপ্রধানেরপদবী:

সহকারী সেটেলমেন্ট অফিসার

কার্যক্রম:

সহকারী সেটেলমেন্ট অফিসারের কার্যালয় এর উল্লেখযোগ্য কার্যক্রম হল ভূমি নকশা ও রেকর্ড হালকরণ সংক্রান্ত সকল প্রকার বিধি-বিধান অনুসরণপূর্বক সরেজমিন নকশা হালনাগাদকরণের (পি-৭০ শীটে নুতন নকশা কিংবা ব্লু-প্রিন্ট শীটে আপ-ডেটকরণ) মাধ্যমে সরকারী  খাস জমি, অর্পিত সম্পত্তি,সকল প্রকার প্রাতিষ্ঠানিক সম্পত্তিসহ সাধারণ ভূমি মালিকগণের জমির রেকর্ড হালকরণ শেষে জেলা প্রশাসনসহ সংশ্লিষ্ট দপ্তরসমূহে হস্তান্তর।

আওতাধীনঅফিস: এটি মাঠ পর্যায়ের সর্বশেষ স্তরের অফিস। এ অফিসের আওতাধীন আর কোন অফিস নেই।

 

নাগরিক ও সরকারী পর্যায়ে সমস্যা সমূহ এবং সার্ভিস আইডেন্টিফিকেশন

ক্রমিক নং

সেবা

সেবা প্রদান / প্রাপ্তির ক্ষেত্রে অসুবিধাসমূহ

নাগরিক পর্যায়

সরকারী পর্যায়

০১.

ভূমি নকশা ও রেকর্ড হালনাগাদকরণ:

 

ক) নকশা প্রস্তুতি:

(ক্যাডাস্ট্রাল সার্ভে)

ভূমি মালিকগণ অনেক সময় মাঠ জরিপ (নকশা প্রস্তুতির সময়) কাজে উপস্থিত থাকতে পারেন না বিধায় সঠিক নকশা প্রস্তুতিতে অসুবিধা হয়।

তৃণমূল পর্যায়ে জরিপভুক্ত মৌজার প্রতিটি ভূমি মালিককে  ভূমি জরিপ কার্যক্রম সম্পর্কে অবহিতকরণে যথেষ্ট প্রচার প্রচারণা চালানো সম্ভব হয়না। বিশেষভাবে চরাঞ্চলের ভূমি মালিকগণ দূরবর্তী এলাকায় অবস্থান করেন বিধায় তাদের সময়মত অবহিত করানো যায় না।

 

খ) রেকর্ড প্রস্তুতি:

   (খানাপুরী)

সঠিক সময় মালিকানার সঠিক ও প্রয়োজনীয় দলিলপত্র উপস্থাপন করতে না পারা।

রেকর্ড প্রস্তুতির মুহূর্তে তাৎক্ষণিক ভাবে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র প্রাপ্তির সরকারী পর্যায়ে দীর্ঘসূত্রিতা।

 

গ) বুঝারত:

অসচেতনতা, অজ্ঞতা, অনুপস্থিতি

 

ঘ) তসদিক:

  (এটেস্টেশন)

 

ঙ) খসড়া প্রকাশনা ও আপত্তি মামলা দায়ের:

বিভিন্ন কারণে খসড়া প্রকাশনাকালিন নির্দিষ্ট সময়ে শতভাগ ভূমি মালিকের হাজির হতে না পারা। ফলে প্রয়োজনে সময়মত আপত্তি মামলা দায়ের করতে না পারা।

বিধি মোতাবেক ৩০ কাযর্দিবস খসড়া প্রকাশনার সময় বর্তমান প্রেক্ষাপটে কম। তবে প্রয়োজনানুযায়ী সময় বৃদ্ধি করা যায়।

 

চ) আপত্তি মামলা শুনানি:

পক্ষগণের নির্ধারিত তারিখে নোটিশ প্রাপ্তিতে সমস্যার কারণে হাজির হতে না পারা। কখনও নোটিশ গ্রহণে অনিহা/ গ্রহণ না করা/ গরহাজির

বর্তমানে ভূমি জরিপে মালিকানা সংক্রান্ত জটিলতা বেশী হওয়ায় কেস সংখ্যা বেশী। তবে সে অনুপাতে জনবল বৃদ্ধি পায়নি বিধায় সময়মত নোটিশ জারী করায় সমস্যা হয়।অবকাঠামো/ প্রযুক্তিগত /নিরাপত্তা সমস্যা সংক্রান্ত

 

ছ) আপীল মামলা শুনানি:

 

জ) চূড়ান্ত প্রকাশনা:

বিভিন্ন কারণে চূড়ান্ত প্রকাশনাকালিন নির্দিষ্ট সময়ে শতভাগ ভূমি মালিকের হাজির হতে না পারা। ফলে ছাপাজনিত, করণীক কিংবা নকশা সংশোধন সংক্রান্ত  কোন সমস্যা হলে প্রয়োজনে আবেদন দাখিল দায়ের করতে না পারা।

বিধি মোতাবেক ৩০ কার্যদিবস চূড়ান্ত প্রকাশনার সময় বর্তমান প্রেক্ষাপটে কম। তবে প্রয়োজনানুযায়ী সময় বৃদ্ধি করা যায়।

ভূমিমালিকগণকে সেবাপ্রাপ্তি সম্পর্কে সচেতন করা দরকার।

মুদ্রণে নিযুক্ত ব্যাক্তিগণের রেকর্ড প্রস্তুতের প্রক্রিয়া ও ফরমেট সম্পর্কে ধারণার স্বল্পতা

নাগরিক সেবার তথ্য সারণী

ক্রমিকনং

বিভাগ/দপ্তর

সেবাসমুহ/

সেবারনাম

দায়িত্বপ্রাপ্ত

কর্মকর্তা/কর্মচারী

সেবাপ্রদানেরপদ্ধতি

সেবাপ্রদানেরপ্রয়োজনীয়সময়

সেবাপ্রদানেরফি

Frequency

সংশ্লিষ্টআইন/বিধিবিধান

সেবাপ্রদানেব্যর্থহলেপ্রতিকারেরবিধান

০১.

ভূমি রেকর্ড ও জরিপ অধিদপ্তর অধীন জোনাল সেটেলমেন্ট অফিস ও তদাধীন উপজেলা সেটেলমেন্ট অফিস।

নকশা প্রস্তুতি:

(ক্যাডাস্ট্রাল সার্ভে)

১।সরদারআমিন

২।বদর আমিন

৩।চেইনম্যান

 

 

পি-৭০ শীটে সরেজমিন মোতাবেক সঠিকভাবে প্রতিটি ভূমি মালিকের প্লট এর নকশা অংকন করা। মৌজা সীমানা মিল করা, প্রযোজ্য ক্ষেত্রে মৌজা সীমানা বিরোধ নিষ্পত্তি করা। সীমানানির্ধারণপুর্বক

স্থায়ীসীমানাপীলারস্থাপনকরাদরকার

নকশা প্রস্তুতকালিন মৌজার এরিয়া অর্থাৎ ভূমির পরিমাণ অনুযায়ী সময়।

ফি নেই। তবে মৌজা সীমানা বিরোধ থাকলে আবেদনকারী ৫০০ টাকার কোট ফি প্রদান করে প্রতিকার প্রার্থনা করতে পারবেন।

প্রতিদিন প্রতি আমিন ১৬”= ১ মাইল স্কেলে কমপক্ষে ১৫ একর।

বেঙ্গল সার্ভে এ্যাক্ট, ১৮৭৫ এর ৩ ধারা (বেঙ্গল এ্যাক্ট নং ৫, ১৮৭৫), টেকনিক্যাল রুলস ১৯৫৭ এর ২য় অধ্যায় ২৭ হতে ৩০ বিধি, রাস্ট্রীয় অধিগ্রহণ ও প্রজাস্বত্ব আইন ১৯৫০ এর ১৪৪(১) ধারা (১৯৫১ সনের ২৮ নং এ্যাক্ট), প্রজাস্বত্ব বিধিমালা ১৯৫৫ এর ২৭ নং বিধি।

উপ-সহকারী সেটেলমেন্ট অফিসারকে অবহিতকরণ।

পীলার স্থাপন কাজে সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের প্রতিনিধি থাকা অত্যাবশ্যক এবং তথ্য সংরক্ষণ আবশ্যক।

০২.

 

রেকর্ড প্রস্তুতি:

(খানাপুরী)

১।সরদারআমিন

২।বদর আমিন

৩।চেইনম্যান

 

 

সরেজমিন মোতাবেক অংকিত প্রতিটি প্লট এ গিয়ে দখল, মালিকানার দলিলাদি অর্থাৎ যার ক্ষেত্রে যা প্রযোজ্য (পূর্ববর্তী রেকর্ডের পর্চা, খারিজ পর্চা যদি থাকে, ক্রয়সূত্রে মালিক হলে রেজিস্ট্রিকৃত দলিল অথবা প্রত্যায়িত নকল, নিলাম ক্রয়ের ক্ষেত্রে বায়নামা ও দখলনামা/ ডি সি আর সরকার/ সংস্থা কর্তৃক বন্দোবস্ত/ বরাদ্ধমূল্যে মালিক হলে তার কাগজপত্র, আদালতের আদেশমূলে মালিক হলে রায়ের কপি এবং দখল প্রমানের জন্য দখলনামা, অছিয়তমূলে মালিক হলে অছিয়তকারীর মৃত্যুর পরে অছিয়ত Probate করা হয়ে থাকলে তার প্রমাণ/ আদেশ, দান/উইল/হেবা মূলে মালিক হলে এ সংক্রান্ত রেজিস্ট্রি দলিল, বিনিময় সম্পত্তি হলে বিনিময়/হস্তান্তর দলিল, এওয়াজ মূলে মালিক হলে রেজিস্ট্রি এওয়াজ দলিল, অর্পিত সম্পত্তির তালিকা হতে অবমুক্ত করা হলে আদেশের কপি, উত্তরাধিকার সূত্রে মালিক হলে উত্তরাধিকার সনদপত্র,অংশীদারি সম্পত্তি বন্টিত হলে রেজিস্ট্রিকৃত বন্টননামা দলিল, খাজনা প্রদানের দাখিলা ইত্যাদি মালিকানা প্রমাণের কাগজপত্র) যাচাই করে খতিয়ান প্রস্তুতকরণ। 

নকশা প্রস্তুত শেষে দাগের সংখ্যা অনুযায়ী সময়।

কোন ফি নেই

প্রতিদিন প্রতি আমিন ৬০টি দাগ।

টেকনিক্যাল রুলস ১৯৫৭, প্রজাস্বত্ব বিধিমালা ১৯৫৫ এর ২৭ নং বিধি।

উপ-সহকারী সেটেলমেন্ট অফিসারকে অবহিতকরণ।

০৩.

 

খানাপুরী কাম বুঝারত:

১।সরদারআমিন

২।বদর আমিন

৩।চেইনম্যান

 

 

ব্লু-প্রিন্ট শীটে নকশা হলে একই সাথে নকশা হাল-নাগাদ করা ও পাশাপাশি উপরো‍ক্ত কাগজপত্র পরীক্ষা করে রেকর্ড প্রস্তুত করা ও বুঝিয়ে দেয়া।

দাগের সংখ্যা অনুযায়ী সময়।

ফি নেই। তবে এ স্তরে মৌজা সীমানা বিরোধ থাকলে তা নিষ্পত্তিতে ৫০০ টাকার কোট ফি এর সাথে বিলম্ব ফি হিসাবে বিঘা প্রতি ১০০ টাকা ও তদন্ত ফি কমপক্ষে ১০ টাকা প্রদান করতে হবে।

 

প্রতিদিন প্রতি আমিন বদরসহ ৬০টি দাগ।

এস এস ম্যানুয়াল ১৯৩৫, সালের বেঙ্গল সার্ভে এ্যাক্ট ১৮৭২, টেকনিক্যাল রুলস ১৯৫৭ এর ৪ অধ্যায় ১৩ নং বিধি, প্রজাস্বত্ব বিধিমালা ১৯৫৫ এর ২৭ নং বিধি।

উপ-সহকারী সেটেলমেন্ট অফিসারকে অবহিতকরণ।

০৪.

 

বুঝারত:

১।সরদার আমিন

২।বদর আমিন

৩।চেইনম্যান

পি-৭০ শীটের নকশায় দাগের এরিয়া নির্ণয় ও খানাপুরী স্তরে প্রস্তুতকৃত রেকর্ডের হুবহু কপি করে ভূমি মালিকগণের নিকট বিতরণ এবং প্রতিটি প্লট এ গিয়ে ভূমির পরিমান, নকশার সঠিকতা যাচাই অন্তে প্রয়োজনে সংশোধন করে দখল, মালিকানার দলিলা ইত্যাদি পরীক্ষান্তে মাঠ খতিয়ান বুঝিয়ে দেওয়া। কোন বিরোধ দেখা দিলে বিবাদগ্রহণ।

রেকর্ড প্রস্তুত শেষে খতিয়ান কপি বিতরণের পর দাগের সংখ্যা অনুযায়ী সময়।

উপ-সহকারী সেটেলমেন্ট অফিসারকে অবহিতকরণ।

বিবাদ নিষ্পত্তি

০৫.

 

তসদিক:

(এটেস্টেশন)

১। তসদিক অফিসার

(উপ-সহকারী সেটেলমেন্ট অফিসার) -১

২। বেঞ্চ সহকারী- ১

৩৷সার্ভেয়ার- ১

৪। এম এল এস এস- ১

৫।চেইনম্যান- ১

১৫ দিন পূর্বে ১টি ও ৭ দিন পূ্র্বে রিমাইন্ডার নোটিশ জারী করে খতিয়ানের ক্রম অনুযায়ী প্রতি কর্মদিবসে বর্তমান হারে নির্ধারিত ৪০টি খতিয়ানের কর্মসূচী দিয়ে সে অনুযায়ী তসদিক অফিসার সকল কাগজপত্র যাচাই করে দাখিলকৃত খতিয়ান তসদিক বা সত্যায়িত করে দিবেন। কোন বিবাদ দেখা দিলে তা শুনানি দিয়ে নিষ্পত্তি করবেন।

বুঝারত সম্পন্ন হওয়ার পর খতিয়ান সংখ্যা অনুযায়ী প্রয়োজনীয় সময়। তবে প্রতি ভূমি মালিক প্রতিটি খতিয়ানের জন্য ১ দিন সময় পাবেন।

তসদিক ফি নেই। তবে নকশা পুনরায় পরিমাপ (বদর) করার প্রয়োজন হলে বদর ফি হিসাবে প্রতি দাগে ৫ টাকা, মৌজার অবস্থান ক্যাম্প হতে ৫কিঃমিঃ এর অধিক হলে ১ জন সার্ভেয়ারের ১দিনের মূল বেতনের সমপরিমান টাকা ডিসিআর এর মাধ্যমে প্রদান করতে হয়। 

প্রতিদিন প্রতি তসদিক অফিসার ৪০টি খতিয়ান।

প্রজাস্বত্ব বিধিমালা ১৯৫৫ এর ২৮ নং বিধি।

টেকনিক্যাল রুলস এর ৯ অধ্যায়ের ৬৩ বিধি

সহকারী সেটেলমেন্ট অফিসারকে অবহিতকরণ।

০৬.

 

খসড়া প্রকাশনা ও আপত্তি মামলা দায়ের:

১।সহকারী সেটেলমেন্ট অফিসার- ১

২। পেশকার -১

৩। এম এল এস এস- ১

তসদিক পরবর্তী যাচাই কাজ, প্রস্তুতকৃত খতিয়ান একত্রিকরণ ও ডিপি নম্বর প্রদান শেষে খসড়া প্রকাশনা আরম্ভের তারিখ, স্থান ইত্যাদি ভূমি মালিকগণকে নোটিশের মাধ্যমে জ্ঞাত করে নকশা ও খতিয়ানে কোনরূপ ভুলত্রুটি আছে কিনা তা দেখা ও প্রয়োজনে আপত্তি মামলা দায়েরের জন্য ভূমি মালিকগণকে প্রদর্শন করা হয়।

মোট ৩০ কাযর্দিবস।

আপত্তি মামলা দায়েরের ক্ষেত্রে দরখাস্ত বাবদ ১০ টাকা, প্রতি সাকিন ৫ টাকা হারে কোর্ট ফি প্রদান করতে হবে।

 

-

প্রজাস্বত্ব বিধিমালা ১৯৫৫ এর ২৯ নং বিধি।

রাষ্ট্রীয় অধিগ্রহণ ও প্রজাস্বত্ব আইন ১৯৫০ এর ১১৬ ধারা

জোনাল সেটেলমেন্ট অফিসার/

চার্জ অফিসারকেঅবহিতকরণ।

০৭.

 

আপত্তি মামলা শুনানি:

১। আপত্তি অফিসার

(সহকারী সেটেলমেন্ট অফিসার/ক্ষমতা সম্পন্ন কর্মকর্তা)- ১

২। বেঞ্চ ক্লার্ক - ১

৩। সার্ভেয়ার - ১

৪। প্রসেস সার্ভার - ১

৫। এম এল এস এস - ১

বাদী ও বিবাদী উভয়কে নোটিশ জারীর মাধ্যমে শুনানির তারিখ, সময় ও স্থান অবহিত করিয়ে পক্ষগণের কিংবা তাদের উপযুক্ত প্রতিনিধির উপস্থিতিতে মালিকানা সংক্রান্ত সকল কাগজপত্র যাচাই,দখল পর্যালোচনা করে সিদ্ধান্ত প্রদান ও সেমতে পরিবর্তন হলে তা প্রযোজ্য ক্ষেত্রে নকশা ও রেকর্ডে তামিলকরণ। রায়ে অসন্তুষ্ট হলে রায় প্রদানের ৩০ কাযর্দিবসের মধ্যে নকল গ্রহণ ও আপীল মামলা দায়ের করতে হবে।

আপত্তি মামলার সংখ্যার উপর সময় নির্ভরশীল।

শুনানির সময় নকশা বদরের প্রয়োজন হলে প্রতি দাগে ৫ টাকা, মৌজার অবস্থান ক্যাম্প হতে ৫কিঃমিঃ এর অধিক হলে ১ জন সার্ভেয়ারের ১দিনের মূল বেতনের সমপরিমাণ টাকা ফি প্রদান করতে হয়। রায়ের জাবেদা নকল এর জন্য দরখাস্তের সাথে ১০ টাকার কোট ফি ও প্রয়োজনীয় ফোলিও প্রদান করতে হবে।

আপীল মামলা দায়েরের ক্ষেত্রে দরখাস্ত বাবদ ১০ টাকা, প্রতি সাকিন ৫ টাকা হারে কোট ফি প্রদান করতে হবে।

 

প্রতি কর্মদিবসে কম/বেশী ১৫টি আপত্তি মামলা শুনানি।

প্রজাস্বত্ব বিধিমালা ১৯৫৫ এর ৩০ নং বিধি।

সাক্ষ্য আইনের ৭৬ ধারা অনুযায়ী  জাবেদা নকল এর জন্য সেটেলমেন্ট অফিসারের দেয় ক্ষমতা সম্পন্ন কর্মকর্তা।

সেটেলমেন্ট অফিসার/

চার্জ অফিসারকে অবহিতকরণ।

০৮.

 

আপীল মামলা শুনানি:

১। আপীল অফিসার

(চার্জ অফিসার/ সহকারী সেটেলমেন্ট ১।অফিসার/ক্ষমতা সম্পন্ন কর্মকর্তা) -১

২। বেঞ্চ ক্লাক - ১

৩। সার্ভেয়ার - ১

৪। প্রসেস সার্ভার - ১

৫। এম এল এস এস - ১

বাদী ও বিবাদী উভয়কে নোটিশ জারীর মাধ্যমে শুনানির তারিখ, সময় ও স্থান অবহিত করিয়ে পক্ষগণের কিংবা তাদের উপযুক্ত প্রতিনিধির উপস্থিতিতে প্রয়োজনে জাতীয় পরিচয়পত্রসহ মালিকানা সংক্রান্ত সকল কাগজপত্র যাচাই ও দখল পর্যালোচনা করে সিদ্ধান্ত প্রদান ও সেমতে পরিবর্তন হলে তা প্রযোজ্য ক্ষেত্রে নকশা ও রেকর্ডে তামিলকরণ।টেবিল ডায়েরি ও মৌজা ওয়ার রেজিষ্টার সংরক্ষণ।

 

আপীল মামলার সংখ্যার উপর সময় নির্ভরশীল।

শুনানির সময় নকশা বদরের প্রয়োজন হলে প্রতি দাগে ৫ টাকা, মৌজার অবস্থান ক্যাম্প হতে ৫কিঃমিঃ এর অধিক হলে ১ জন সার্ভেয়ারের ১দিনের মূল বেতনের সমপরিমাণ টাকা ফি প্রদান করতে হয়।

প্রতি কর্মদিবসে কম/বেশী ১০টি আপীল মামলা শুনানি।

প্রজাস্বত্ব বিধিমালা ১৯৫৫ এর ৩১ নং বিধি।

 

সেটেলমেন্ট অফিসারকে অবহিতকরণ।

০৯.

 

চূড়ান্ত প্রকাশনা:

১। সহকারী সেটেলমেন্ট অফিসার - ১

২। অফিস সহকারী - ১

৩। এম এল এস এস - ১

চূড়ান্ত যাচাই, খতিয়ান ও নকশা মুদ্রণ শেষে সেটেলমেন্ট প্রেস হতে খতিয়ান ও ম্যাপ মুদ্রণ প্রেস হতে মুদ্রিত ম্যাপ পাওয়ার পর চূড়ান্ত প্রকাশনার নোটিশ জারী ও চূড়ান্ত প্রকাশনার তারিখ, স্থান ও সময় ইত্যাদি উল্লেখ করে ভূমি মালিকগণকে খতিয়ান ও নকশা সরকারী ক্রয়মূল্যে ক্রয় করতে জানিয়ে দেওয়া হয়। এ সময় খতিয়ান ও নকশায় কোনরুপ ছাপাজনিত, করণীক কিংবা তঞ্চকতাপূর্ণ ভুল পাওয়া গেলে তা সংশোধনের জন্য ভূমি মালিককে সেটেলমেন্ট অফিসার বরাবরে আবেদন দাখিল করতে হয়।

৩০ কর্মদিবস নকশা ও রেকর্ড বিক্রয় করা হয়।

প্রতিটি খতিয়ান ৬০ টাকা ও প্রতিটি নকশা ৩৫০ টাকা। সংশোধন আবেদনে ১০ টাকার কোট ফি প্রদান করতে হয়।

৩০ কর্মদিবস

প্রজাস্বত্ব আইনের ১৪৪ ধারার ৭ নং উপ-ধারা

প্রজাস্বত্ব বিধিমালা ১৯৫৫ এর ৩৩ নং বিধি।

 

সেটেলমেন্ট অফিসার/চার্জ অফিসারকে অবহিতকরণ।

১০.

 

চূড়ান্ত প্রকাশনাকালিন প্রাপ্ত আবেদন অনুযায়ী সংশোধনঃ

জোনাল সেটেলমেন্ট অফিসার

অফিস সহকারী - ১

এম এল এস এস - ১

জোনাল সেটেলমেন্ট অফিসার/

ক্ষমতাসম্পন্ন কর্মকর্তা দ্বারা আবেদন যাচাই করে প্রয়োজনে সংশোধনের ব্যবস্থা নেওয়া হয়।  

৬০দিনের মধ্যে

 

৬০দিন

সার্ভে এন্ড সেটেলমেন্ট ম্যানুয়াল ১৯৩৫ এর ৫৩৩, ৫৩৪ ও ৫৩৭ নং অনুচ্ছেদ।

পরিচালক (ভূমি রেকর্ড)

ভূমি রেকর্ড ও জরিপ অধিদপ্তর

 

 

 

চূড়ান্ত প্রকাশনা সম্পন্নের সনদ প্রদান:

চূড়ান্ত প্রকাশনা  অফিসার (সহকারী সেটেলমেন্ট অফিসার/ ক্ষমতা সম্পন্ন কর্মকর্তা)

চূড়ান্ত প্রকাশনা সম্পন্নের ৬০ দিনের মধ্যে প্রকাশনা অফিসার সার্টিফিকেট প্রদান করবেন।

-

-

৬০দিনের মধ্যে

প্রজাস্বত্ব বিধিমালা ১৯৫৫ এর ৩৪(১) নং বিধি।

 

 

১১.

 

গেজেট্ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের প্রস্তাব প্রেরণ:

সহকারী সেটেলমেন্ট অফিসার

 

ভূমি মন্ত্রণালয়ে গেজেট বিজ্ঞপ্তি জারীর পত্র প্রেরণের জন্য সেটেলমেন্ট অফিসারকে অনুরোধ করে পত্র প্রেরণ।

-

-

-

প্রজাস্বত্ব বিধিমালা ১৯৫৫ এর ৩৪(২) নং বিধি।

 

 

১২.

 

চূড়ান্ত রেকর্ড হস্তান্তর:

সহকারী সেটেলমেন্ট অফিসার

গেজেট বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের পর জেলা প্রশাসকের কাযার্লয়সহ সংশ্লিষ্ট দপ্তরসমূহে চূড়ান্ত প্রকাশিত নকশা ও রেকর্ড হস্তান্তরের মধ্য দিয়ে কাযর্ক্রম সমাপ্ত হয়।

 

 

 

প্রজাস্বত্ব বিধিমালা ১৯৫৫ এর ৩৪ নং বিধি।

সার্ভে এন্ড সেটেলমেন্ট ম্যানুয়াল ১৯৩৫ এর  ৫৬৯হতে৫৭২ অনুচ্ছেদ।

 

 

১৩.

 

তথ্য সেবা

পেশকার

মৌজাসমূহের জরিপের সর্বশেষ অবস্থা সম্পর্কিত তথ্য প্রদান।

১ দিন

নেই

-

-

সহকারী সেটেলমেন্ট অফিসারকে অবহিতকরণ

 

 

সংযুক্তি